গল্পে গল্পে ফেসবুকের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস

আসসালামু আলাইকুম, বন্ধুরা আশাকরি ভালো আছো। আমি কাওসার bdtechhouse24 এর পক্ষ থেকে আজকের পর্বে সবাইকে জানাই স্বাগতম।

বর্তমান সময়ে আমরা সকলেই কমবেশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোর উপর নির্ভরশীল। আর যোগাযোগ মাধ্যমগুলোর মধ্যে এ সময়ে নাম্বার ওয়ান এ রয়েছে ফেসবুক। প্রতিনিয়ত ফেসবুক আমাদের দৈনন্দিন জীবনের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে উঠেছে। একজন ব্যবহারকারী তার পকেটের পয়সা খরচ করে, মূল্যবান সময় ব্যয় করে, অমূল্য চোখের দৃষ্টি শক্তির ক্ষতি করে ফেসবুক ব্যবহার করছেন, তাও আবার নিয়মিত। তাহলে এই পকেটের পয়সা, মূল্যবান সময় যার পিছনে খরচ করছেন তার সম্পর্কে কি আমাদের জানা উচিত নয়! আশা করি জানতে চাইবেন, কিছুটা হলেও। তো আপনার দৈনন্দিন জীবনের এই গুরুত্বপূর্ণ অংশটিকে আরও কাছ থেকে জানতে পুরো পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন।
Facebook
Facebook 

ফেসবুক কি?

ফেসবুক বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। বাংলাদেশে ও এর জনপ্রিয়তা কোন অংশে কম নয়। ফেসবুকের সম্পূর্ণ ফ্রিতে একাউন্ট বা আইডি খোলা যায়। আপনি আপনার ফেসবুক একাউন্ট বা আইডি ব্যবহার করে আপনার বন্ধু, পরিবার থেকে শুরু করে আত্মীয়-স্বজন পর্যন্ত সকলের সাথে যোগাযোগ করতে পারবেন। ফেসবুকের কিছু জনপ্রিয় ফিচার হচ্ছে স্ট্যাটাস, চ্যাট, ভয়েস কল, ভিডিও কল, এবং ভিডিও শেয়ারিং।

একজন ফেসবুক ব্যবহারকারী ফ্রেন্ড এড করা, বার্তা প্রেরণ করা, ব্যক্তিগত তথ্য আপডেট করা ও আদান-প্রদান করা সহ আরো অনেক কাজ করতে পারেন। এর পাশাপাশি আরও চাইলে ব্যবহারকারী তার শহর, কর্মস্থল, বিদ্যালয় বা অঞ্চল-ভিক্তিক নেটওয়ার্কেও যুক্ত হতে পারেন।

ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা সংক্ষিপ্ত পরিচয়

হয়তো ফেসবুকের জনক বা প্রতিষ্ঠাতার সাথে আমরা সকলেই কমবেশী পরিচিত। জনপ্রিয় এই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের প্রতিষ্ঠাতা হচ্ছেন মার্ক জাকারবার্গ। তার পুরো নাম মার্ক এলিয়ট জাকারবার্গ। তবে ফেসবুক প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে তাঁর কিছু বন্ধু ও রুমমেট তাকে সাহায্য করেছেন। মার্ক জাকারবার্গ একজন আমেরিকান সফটওয়্যার ডেভলপার ও কম্পিউটার প্রোগ্রামার। তুই বর্তমানে ফেসবুকের প্রধান নিবার্হী কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।

যখন তিনি হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলেন তখন তিনি সহ তাঁর কয়েকজন সহপাঠী মিলে ফেসবুককে ব্যক্তি মালিকানা প্রতিষ্ঠান হিসাবে প্রতিষ্ঠা করেন। তবে অবাক করার মতো তথ্য হচ্ছে মাত্র ২৬ বছর বয়সে মার্ক জাকারবার্গ টাইম ম্যাগাজিনের দৃষ্টিতে বছরের সেরা ব্যক্তিত্ব রূপে নির্বাচিত হয়েছিলেন।

ফেসবুকের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস

মার্ক জাকারবার্গ হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র থাকাকালীন ২০০৩ সালের ২৮ অক্টোবর ফেসবুকের পূর্বসূরী ওয়েবসাইট ফেসম্যাস তৈরি করেন। তিনি এতে হার্ভার্ডের ৯ টি হাউসের শিক্ষার্থীদের ছবি ব্যবহার করেন। তিনি দুইটি করে ছবি পাশাপাশি দেখান এবং হার্ভার্ডের সব শিক্ষার্থীদের ভোট দিতে বলেন। কোন ছবিটি হট আর কোনটি হট নয়। 'হট অর নট'। এজন্য মার্ক জাকারবার্গ হার্ভার্ডের সংরক্ষিত তথ্য কেন্দ্রে অনুপ্রবেশ বা হ্যাক করেন। ফেসম্যাস সাইট এ মাত্র ৪ ঘণ্টায় ৪৫০ ভিজিটর ২২০০০ ছবিতে অন লাইন এর মাধ্যমে ভোট দেন।

ফেসম্যাস থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে ২০০৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে হার্ভার্ডের ডরমিটরিতে thefacebook.com এর উদ্বোধন করেন।  জুনে প্যালো আল্টোতে অফিস নেওয়া হয়। ডিসেম্বরে ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১০ লাখে পৌঁছায়। 2005 সালে thefacebook.com নাম পাল্টে শুধু Facebook রাখা হয়। যেখানে ২০০৯ এর  জানুয়ারিতে ব্যবহারকারী ১৫ কোটি ছিল সেখানে মাত্র ১০ মাস পর অর্থাৎ ডিসেম্বরে ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৩৫ কোটিতে।

ফেসবুক ব্যবহারের কিছু সুবিধা 

ফেসবুক বিশ্বের অন্যতম সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। তাই এটি ব্যবহারের অনেক সুবিধা রয়েছে। তার মধ্যে কিছু সুবিধা নিচে তুলে ধরা হলো।

  • ফেসবুকের মাধ্যমে খুব সহজেই বন্ধু-বান্ধব থেকে শুরু করে সকলের সাথে যোগাযোগ করা যায়
  • ফ্রিতে মেসেজিং, অডিও ও ভিডিও বিশ্বের যেকোন প্রান্তে, যেকোন দেশে কল করা যায়।
  • যাদের সাথে ব্যক্তি জীবনে যোগাযোগ করা অসম্ভব প্রায় তাদের সাথে ফেসবুকে যোগাযোগ করা মাত্র কয়েক সেকেন্ডের ব্যাপার।
  • ফেসবুক খুব কম সময় কারো সাথে যোগাযোগ করার অন্যতম একটি মাধ্যম।
  • ফেসবুকের মাধ্যমে খুব সহজেই কোন বিষয়ে প্রতিবাদ করা সম্ভব।
  • ফেসবুকে এখন রক্তদান কর্মসূচি পরিচালিত হচ্ছে। তাই রক্তের অভাবে মরতে হচ্ছে না অনেক অসুস্থকে।
  • ফেসবুকের সুবাদে অনলাইন মার্কেটিংয়ের কাজ এখন আরো সহজ হয়ে গেছে।
  • ফেসবুকের মাধ্যমে অনেক উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে অংশগ্রহণ করা যায়।

ফেসবুক ব্যবহারের কিছু অসুবিধা

ফেসবুক ব্যবহারের হাজার অসুবিধা বা উপকারিতা থাকলেও এর অপকারিতা ও রয়েছে অনেক।তার মধ্যে কিছু উল্লেখযোগ্য অপকারিতা বা অসুবিধা নিচে তুলে ধরা হলো।

  • সম্প্রতি সময় ফেসবুকে সব থেকে বড় অসুবিধা হচ্ছে মুহূর্তের মধ্যে গুজব ছড়িয়ে দেয়া।
  • আইডি হ্যাকিং এর মাধ্যমে কাউকে বিপদে ফেলে বাপ ব্ল্যাকমেইল করে অর্থ হাতিয়ে নেয়া।
  • ভুয়া প্রেমের ফাঁদে ফেলে সর্বস্ব লুট করে নেয়া।
  • কাল ছবি এডিট করে পর্নোগ্রাফির মতো করে তার সামাজিক মান সম্মানের হানি করা।
  • আর ফেসবুকের সবথেকে বড় অসুবিধা আবার সমস্যা হচ্ছে সময়ের অপচয়।

শেষ কথা

ফেসবুক একটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। যার মাধ্যমে সহজেই অনেক কঠিন কাজ করা সম্ভব হচ্ছে।তবে বর্তমান সময়ে লক্ষনীয় একটি বিষয় হচ্ছে আমরা সবাই ফেসবুকে এডিক্টেড হয়ে পড়ছি। এটা কখনোই কাম্য নয়। সবসময় মনে রাখতে হবে আমরা ফেসবুক চালাবো কিন্তু ফেসবুক আমাদের নয়। সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন।

নিয়মিত টেক রিলেটেড সকল নিউজ, টিপস ও ট্রিকস পেতে আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব কর। ফেসবুক পেজে লাইক দেও ও টুইটারে ফলো কর। এবং তোমার আইডিয়া আমাদের জানাতে কমেন্ট কর অথবা matubbormdkawsar@gmail.com ঠিকানায় মেইল কর।

Post a Comment

0 Comments